ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ৬ সাংবাদিকের হাত-পা কেটে নেয়ার হুমকি

সংবাদ প্রকাশ সংক্রান্ত ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছয় সাংবাদিককে হাত-পা কেটে নেয়ার হুমকি দেয়া হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ‌্যমে।

গতকাল মঙ্গলবার (৭ জুলাই) ফেসবুকে পোস্টের মাধ‌্যমে জেলার কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কাওছার ভূইয়া জীবন ও পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছায়েদুর রহমান মানিকের পক্ষ থেকে এ হুমকি দেয়া হয়।

আজ বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) এ নিয়ে কসবা পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছায়েদুর রহমান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন, হুমকি দেয়া আইডিগুলো ফেক। এসব আইডির বিষয়ে তিনি অবগত নন। স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানিয়ে তিনি এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তার তালিকায় অনিয়ম নিয়ে কসবার একাধিক জনপ্রতিনিধি ও এডিপির কাজ না করেই বিল উত্তোলনের অভিযোগে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে।এরই জের ধরে ‘জীবন ভাইয়ের সৈনিক’, ‘মানিক চেয়ারম্যানের সৈনিক’ নামে দুটি ফেসবুক আইডি থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছয় সাংবাদিককে হাত-পা কেটে নেয়ার হুমকি দেয়া হয়।

যারা হুমকি প্রাপ্ত তারা হলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব দীপক চৌধুরী বাপ্পী, আখাউড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি মানিক মিয়া, দেশ রূপান্তরের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি মনির হোসেন, সময় টিভির ব্যুরো চিফ উজ্জল চক্রবর্তী, এনটিভির নিজস্ব প্রতিবেদক শিহাব উদ্দিন বিপু ও কালেরকণ্ঠের ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি বিশ্বজিৎ পাল বাবু।

তবে, বিষয়টি জানার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবাইল ফোনে কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদুল কাওছার ভূইয়া জীবনের সাথে কথা বলেন। পাশাপাশি এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশনা দেন।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব দীপক চৌধুরী বাপ্পী বলেন, ‘ফেসবুকে এসব হুমকি-ধামকি কাপুরুষদের কাজ। হুমকি-ধামকির কারণে সত্য সংবাদ প্রকাশ থেকে আমরা কেউ পিছপা হব না। প্রেসক্লাবের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার চিন্তা করছি।’

কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি, পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।’

কসবা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ঠিকাদার এমদাদুল হক পলাশ বলেন, ‘সাংবাদিকদের সাথে কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও অন্যান্য য়ারম্যানের বিরোধ সৃষ্টির জন্য কোনো একটি পক্ষ সুযোগ নিতে এ ধরনের কাজ করেছে। বিষয়টি বুঝতে পেরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিজেই জিডি করার উদ্যোগ নিয়েছেন।’

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here