নির্দেশনা পেলেই খালেদার স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন: বিএসএমএমইউ পরিচালক

বেগম খালেদা জিয়া-ছবি সংগৃহীত
বেগম খালেদা জিয়া-ছবি সংগৃহীত

২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের সাজা হয় তার। পরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ডাদেশ বাতিল চেয়ে করা আপিলে সাজা ৫ বছর থেকে বাড়িয়ে ১০ বছর করেন উচ্চ আদালত। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহবুবুল হক বলেছেন, আদালতের নির্দেশ এখনও আমাদের হাতে এসে পৌঁছায়নি। নির্দেশনা হাতে পেলেই প্রতিবেদন তৈরি করে পাঠিয়ে দেয়া হবে।
বিএসএমএমইউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দুর্নীতির মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন-সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন আগামী ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে দাখিল করতে নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে তার জামিন চেয়ে করা আবেদনের শুনানি ওই তারিখ পর্যন্ত মুলতবি করেছেন আদালত।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিএসএমএমইউ হাসাপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহবুবুল হক বলেন, গণমাধ্যমে দেখেছি, কোর্টের আদেশ এখনও আসেনি।
আপনারা প্রস্তুত আছেন কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখনও তো সময় আছে, রিপোর্ট বানাতে তো আর সময় লাগে না। সরকারি আদেশ আসুক, আদালতের আদেশ আমরা মানতে বাধ্য।
খালেদা জিয়া কেমন আছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার অবস্থা ইম্প্রুভিং। বিএসএমএমইউয়ের চিকিৎসকরা তাদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা-সংক্রান্ত জ্ঞান, রিসোর্স দিয়ে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করে যাচ্ছেন।
তিনি বলেন, আমরা সবসময়ই বলেছি, তার (খালেদা জিয়া) অসুখ গ্রাজুয়্যালি ইম্প্রুভ করবে। তার অসুখের ধরন এমনই যে এটা রাতারাতি উন্নত হওয়ার নয়। ধীরে ধীরে তার ইম্প্রুভ হবে এবং হচ্ছেও তা-ই।
তিনি জানান, খালেদা জিয়ার মেডিক্যাল বোর্ডে চেয়ারম্যানের দায়িত্বে আছেন মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. জিলন মিয়া সরকার। বোর্ডের অন্য সদস্যরা হলেন রিউমাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আতিকুল হক, ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক বদরুন্নেছা বেগম, কার্ডিওলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. তানজিমা পারভীন এবং অর্থোপেডিক বিভাগের ডা. চৌধুরী ইকবাল মাহমুদ।
আদালতের নির্দেশ লোকমুখে শুনেছেন বলে জানান বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়াও। তিনি বলেন, মৌখিকভাবে শুনেছি, চিঠির জন্য অপেক্ষা করছি। এখনও আমরা হাতে আদালতের নির্দেশনা পাইনি। নির্দেশনা পেলেই পাঠাবো।
বেগম খালেদা জিয়া কেমন আছেন জানতে চাইলে অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, উনি এমনিতে স্টেবল আছেন, ডায়াবেটিসও আগের চেয়ে ভালো।
তিনি বলেন, আমি আজও বোর্ডের চেয়ারম্যান ডা. জিলন মিয়ার সঙ্গে বসেছিলাম। তার বিভিন্ন ইনভেস্টিগেশন নিয়ে আলোচনা করেছি। খালেদা জিয়া আগের চেয়ে ভালো আছেন বলে দাবি করেন তিনি।
দুর্নীতির মামলায় কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে গত ১ এপ্রিল বিএসএমএমইউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here