ভোলায় গুলিবিদ্ধ ১১ জন বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেলে

শের-ই-বাংলা মেডিকেল
শের-ই-বাংলা মেডিকেল

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করার ঘটনার জেরে ভোলায় পুলিশের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে এই সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত ১১ জনকে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এতে অন্তত ৪ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। নিহত চারজনের মরদেহ ভোলা সদর হাসপাতালে রয়েছে।

গুলিবিদ্ধরা হলেন, মিজানুর রহমান (৩০), নান্টু (৪০), মাকসুদুর রহমান (১৮), তানভীর (৩০), অ‌লিউল্লাহ (৪০), সি‌দ্দিক (২৮), আবু তাহের (৩০), শামীম (১৮),‌ মো. সোহরাব (২৬), আল আমিন ও জামাল।

বুধবার দুপুরে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আবুল হাসনাত রাসেল।

চিকিৎসক আবুল হাসনাত রাসেল জানান, গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ১১ জনকে হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের ইউনিট-২ তে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক, বাকিরা শঙ্কামুক্ত।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানায়, ফেসবুকে মহানবী (সা.) ও বিবি ফাতেমাকে নিয়ে ফেসবুকে ‘অবমাননাকর মন্তব্যের’ অভিযোগে শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশ বিপ্লব চন্দ্র নামে এক যুবককে আটক করে। এদিকে ‘অবমাননাকর বক্তব্যের’ প্রতিবাদে রোববার সকাল ১১টায় কয়েক হাজার মুসল্লি বোরহানউদ্দিন উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এক পর্যায়ে পুলিশ বাধা দিলে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ বেধে যায়। ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষের এক পর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ গুলি চালালে চারজন নিহত এবং অর্ধশতাধিক মানুষ আহত হয়।

জানাযায়, ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় ফেসবুকে মহানবী (সা.)-কে নিয়ে ‘অবমাননাকর স্ট্যাটাসের’ প্রতিবাদে বিক্ষোভের এক পর্যায়ে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বাঁধে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here